fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা রুখতে কেন্দ্রের সঙ্গেই কাজ করবে রাজ্য, মোদিকে আশ্বাস মমতার

জিএসটি বকেয়া ৮৫০০ কোটি, বৈঠকে অর্থ মেটানোর দাবি মুখ্যমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  বাংলা-সহ আটটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ওই বৈঠকে বিরোধীদের তোলা অভিযোগের বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।পশ্চিমবঙ্গে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। রাজ্যে কোভিড পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। সুস্থতার হার বেড়েছে। যত তাড়াতাড়ি ভ্যাকসিন আসবে, তত তাড়াতাড়ি কেন্দ্রের সঙ্গে সংযোগ রেখে টিকাকরণ শুরু করতে প্রস্তুত রাজ্য সরকার। এর আগে সোমবারই বাঁকুড়া প্রশাসনিক সভামঞ্চ থেকে ভ্যাকসিন নিয়ে সুর চড়ান মুখ্যমন্ত্রী। ইচ্ছাকৃতভাবে দেরি করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। ঠিক তার পরেরদিনই মোদির সঙ্গে বৈঠকে দ্রুত ভ্যাকসিনের দাবি জানালেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিনের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “যত দ্রুত ভ্যাকসিন আনার জন্য আমরা কেন্দ্র অথবা যেকোনও মধ্যস্থতাকারীদের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী।”

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনা পর্বে রাজ্য ইতিমধ্যেই ৪ হাজার কোটি টাকা খরচ করেছে। কেন্দ্রের কাছ থেকে এর মধ্যে মিলেছে মাত্র ১৯৩ কোটি টাকা। জিএসটি বাবদ এখনও বকেয়া রয়েছে সাড়ে ৮ কোটি টাকা। সেই টাকা কেন্দ্র দিক।’একইসঙ্গে তিনি রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ‘দুর্গা, কালী আর ছট পুজোর মতো উৎসব পালন করা হয়েছে রাজ্যে। তারপর চালু হয়েছে লোকাল ট্রেনও। তা সত্ত্বেও সংক্রমণ আর মৃত্যুর হার কমেছে রাজ্যে। বেড়েছে সুস্থতার হারও। পশ্চিমবঙ্গ সীমান্ত রাজ্য, বাইরে থেকে প্রচুর লোক আসা যাওয়া করে। তাই সংখ্যা বেশ খানিকটা বেড়েছে। কিন্তু তা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা সামান্য বাড়লেও তা কখনই হাতের নাগালের বাইরে চলে যায়নি। বাংলায় ঊর্ধ্বমুখী সুস্থতার হারের কথাও তুলে ধরেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভাইরাসের মোকাবিলায় আশাকর্মীরা ভাল কাজ করছেন বলেও প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশংসা করেন তিনি।

তবে মমতা জানান, করোনা নিয়ে রাজ্যে এখনও সচেতনতার অভাব আছে। অনেকেই করোনা বিধি শিকেয় তুলে মাস্ক পরছেন না। তিনি বলেন, ‘মানুষ করছেন যে কোভিত-১৯ মহামারী শেষ হয়ে গিয়েছে। শুধু উত্তর ২৪ পরগনার মানুষ মাস্ক পরছেন। বাঁকুড়ায় কেউ সতর্ক হচ্ছেন না। কারণ তাঁরা মনে করছেন যে মহামারী চলে গিয়েছে।’

আরও পড়ুন: পাখির চোখ একুশ, ডিসেম্বরের গোড়ায় বাংলায় আসতে পারেন নাড্ডা

পাশাপাশি, টিকাকরণ পর্বে কেন্দ্রের সঙ্গে সমস্ত সহযোগিতা করতে প্রস্তুত রাজ্য বলেই প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিনের এই ভার্চুয়াল বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন,  যত দ্রুত ভ্যাকসিন জোগাড় করা যায়, ততই ভালো। তাতে সারা দেশের লোকেরই মঙ্গল। এই ক্ষেত্রে কেন্দ্র ও সবপক্ষের সঙ্গেই রাজ্য একযোগে কাজ করতে প্রস্তুত।‌তার পাশাপাশি জিএসটি বাবদ কেন্দ্রের কাছে যে টাকা প্রাপ্য আছে রাজ্যের, তা আবশ্যিকভাবে মিটিয়ে দেওয়ার সওয়াল করেছেন মমতা। যা করোনা মোকাবিলায় সাহায্য করবে। বাকি সাত রাজ্য অবশ্য সে বিষয়ে কিছু বলেনি। নবান্নের ওই আধিকারিক বলেন, ‘টিকা বণ্টনের সময় যাবতীয় সহাযতা করার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।’

 

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close