fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

করোনা ছড়াতে পারেন পরিযায়ী শ্রমিকরা, সতর্ক করল বিশ্ব ব্যাঙ্ক

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: তবলিগ-ই-জামাতের ঘটনার পর গোষ্ঠী সংক্রমণের আতঙ্কে ভুগছে ভারত। তার মধ্যেই আর এক আশঙ্কার কথা শোনাল বিশ্ব ব্যাঙ্ক। রবিবার বিশ্ব ব্যাঙ্কের তরফে দাবি করা হয়েছে, লক্ষ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিক বিভিন্ন রাজ্য থেকে ঘরে ফিরেছেন। তাঁরাও করোনা ভাইরাস বহন করতে পারেন।

লকডাউনের পরপরই কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় হাজার হাজার ভিন রাজ্যের শ্রমিক কয়েকশ কিমি পথ পায়ে হেঁটে বা অন্য কোনও উপায়ে নিজের গ্রামে ফিরছেন এমন চিত্র দেখা গিয়েছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সেই শ্রমিকদের ফেরার পর শারীরিক পরীক্ষা করা হয়েছে। তারপরেও ভারতের যে যে এলাকায় করোনা আক্রান্তের হদিশ পাওয়া গিয়েছে সেই পরিসংখ্যান খতিয়ে দেখে পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে বিশ্ব ব্যাঙ্ক।

রবিবার বিশ্ব ব্যাঙ্কের তরফে  ঘন জনবসতিপূর্ণ দক্ষিণ এশিয়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে এক আঞ্চলিক রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়। সেই রিপোর্টে বিশ্ব ব্যাঙ্কের বিশেষজ্ঞরা দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের কথা উল্লেখ করে বলেন, শহরতলিতে করোনা সংক্রমণ রোধ করা রীতিমতো চ্যালেঞ্জিং। কারণ এই এলাকায়  বস্তিবাসী এবং পরিযায়ী শ্রমিকদের মধ্যে সংক্রমণের প্রবণতা সব থেকে বেশি মাত্রায় লক্ষ্য করা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: বাংলায় লুকিয়ে আছেন জামাতিরা! অথচ পুলিশ নীরব দর্শক: হিন্দু সংহতি

লকডাউন ঘোষণা করার পর দেশীয় আভ্যন্তরীণ পরিবহণ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যেতেই  ভিনরাজ্যে কর্মরত লক্ষ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিকরা সামাজিক দূরত্বর বিষয়ে গুরুত্ব না দিয়েই ঘরের ফিরতে শুরু করেন। যা বিপজ্জনক পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। আর এই ঘরে ফেরার যে জনস্রোত দেখা গিয়েছে তাতে পরিযায়ী শ্রমিকদের মারফত সংক্রমণ গ্রাম-শহরতলিতে ছড়িয়েছে।’

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সংক্রমণ প্রবণ এলাকাগুলিকে চিহ্নিত করে হটস্পট ঘোষণা করে জরুরি পদক্ষেপ করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্ব ব্যাঙ্কের বিশেষজ্ঞরা।

এর পাশাপাশি করোনা সংক্রমণ ও লকডাউনের জেরে এই শ্রমিকদের জীবন জীবিকা যে সংকটের মুখে পড়েছে সে কথাও উল্লেখ করা হয়েছে এই রিপোর্টে।

Related Articles

Back to top button
Close