fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বিশ্ব রেডক্রস দিবস মনে করাচ্ছে রবীন্দ্রনাথের সেবাকাজকে

শরণানন্দ দাস: ক্যালেন্ডারের পাতায় আশ্চর্য দিন শুক্রবার ৮ মে। বাঙালির চিরকালীন আবেগের দিন ২৫ বৈশাখ, কবিগুরুর জন্মদিন। আবার একইসঙ্গে ৮ মে প্রথম নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী জন হেনরি ডুনান্টের জন্মদিন। যে দিনটি বিশ্ব রেডক্রস ডে হিসাবে পালিত হয় বিশ্বজুড়ে। কাকতালীয় ভাবে এবার দুই নোবেল জয়ীর জন্মদিনও একই দিনে। করোনা পীড়িত বিশ্বে নতুন করে বিশ্ব রেডক্রস ডে মনে করাচ্ছে কবিগুরুর সেবাকাজকে।

এই শহরের পুরনো ইতিহাস বলছে, ১৮৯৮ খ্রিস্টাব্দে শহর কলকাতায় প্লেগ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল। সবাই তখন শহর ছেড়ে পালাচ্ছিল, দোকানপাট বন্ধ, পথে গাড়িঘোড়া নেই। সব মিলিয়ে একটা পরিত্যক্ত শহরের ছবি ফুটে উঠেছিল। প্লেগের এই ভয়াবহতার মধ্যে সেবাকাজে আত্মনিয়োগ করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। পাশে পেয়েছিলেন ভগিনী নিবেদিতাকে। অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘জোড়াসাঁকোর ধারে’ বইতে লিখেছেন, ‘সেই সময় কলকাতায় লাগলো প্লেগ। চারিদিকে মহামারী চলছে। ঘরে ঘরে লোক মরে শেষ হয়ে যাচ্ছে। রবিকাকা এবং আমরা এ বাড়ির সবাই মিলে চাঁদা তুলে প্লেগ হাসপাতাল খুলেছি, চুন বিলি করছি। রবিকাকা ও সিস্টার নিবেদিতা পাড়ায় পাড়ায় ইন্স্পেকশানে যেতেন।’

আরও পড়ুন: লকডাউনে রাস্তায় ব্যারিকেড দেওয়াকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা রায়গঞ্জে

প্রসঙ্গত বিশ্ব রেডক্রস দিবস প্রথম পালিত হয় ১৯৪৮ সালের ৮ মে। এই দিনটি ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অফ দি রেডক্রসের প্রতিষ্ঠাতা জন হেনরি ডুনান্টের জন্মদিন। বিশ্বজুড়ে এই দিনটি পালনের মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে সেবা ও শান্তির বার্তা ছড়িয়ে দেওয়া হয়। তাই এই দিনটিতে করোনার এই আবহে বারবার রবীন্দ্রনাথের সেবাকাজের স্মৃতি ফিরে ফিরে আসছে।
১৯১৮র শেষদিক থেকে ১৯১৯ এর গ্রীষ্ম পর্যন্ত স্প্যানিশ ফ্লু বা ইনফ্লুয়েঞ্জা অতিমারীর রূপ নিয়েছিল। শান্তিনিকেতনেও তার আঁচ পড়েছিল। ওই সময়ে শান্তিনিকেতনে এসেছিলেন মিস টেরিঙ্গ ( ফেরিঙ্গ)। তিনি স্প্যানিশ ফ্লুতে আক্রান্ত হন। তাঁর শুশ্রূষা করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন রবীন্দ্রনাথের পুত্র বধূ প্রতিমা দেবী। তাঁর স্বাস্থোদ্ধারের জন্য শিলঙ পাহাড়ে নিয়ে যেতে হয়। ওই সময়ে রবীন্দ্রনাথ নিমের পাঁচন খাইয়ে সুস্থ রেখেছিলেন আশ্রমের ছেলেদের।  করোনার এই দুঃসময়ে নিশ্চিত ভাবেই প্রেরণা জোগাবে কবিগুরুর এই সেবাকাজ। তিনি মনুষ্যত্ব ও সেবাকে জীবনের ধ্রুবতারা করেছিলেন।

Related Articles

Back to top button
Close