fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

বছর ঘুরতেই পরিবর্তন! জম্মু ও কাশ্মীরের নতুন রাজ্যপাল হচ্ছেন প্রাক্তন বিজেপি সাংসদ মনোজ সিনহা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  জম্মু ও কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা বিলোপের বর্ষপূর্তি হয়েছে গতকাল ৫ আগস্ট। আর সঙ্গে সঙ্গেই রাজ্যপালের দায়িত্ব থেকে সরে এসেছেন জিসি মুর্মু। জম্মু ও কাশ্মীরের বর্তমান রাজ্যপাল গিরিশচন্দ্র মুর্মুর পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। উপত্যকার নতুন লেফটেন্যান্ট গভর্নর হতে চলেছেন মনোজ সিনহা । কেন্দ্রও একরাতে মধ্যে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মীরের নতুন রাজ্যপাল খুঁজে নিয়েছে। শোনা যাচ্ছে, সিনিয়র আইএসএস জিসি মুর্মু এবার ক্যাগের দায়িত্বে বহাল হবেন। গত বছর নভেম্বরে ছিল জিসি মুর্মুর অবসর। কিন্তু অক্টোবরে দুই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে জম্মু ও কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট জেনারেল করা হয় তাঁকে। জিসি মুর্মুর পদত্যাগের পর প্রাক্তন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব রাজীব মহাঋষিকে উপত্যকার লেফটেন্যান্ট জেনারেল করতে পারে নয়াদিল্লি।

এই সময় সরকারের একটি সুত্রের তরফে বলা হচ্ছিল, কেন্দ্র যদি চায় কাশ্মীরে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড শুরু হোক তাহলে এমন কাউকে দায়িত্ব দিতে পারে যিনি কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে সংযোগ রেখে চলতে পারেন। দেখা গেল সেটাই করল নয়াদিল্লি। পোড় খাওয়া রাজনীতিক তথা তিন বারের সাংসদকে জম্মু ও কাশ্মীরের সাংবিধানিক প্রধান করে পাঠাচ্ছে কেন্দ্র। মনোজ সিনহা পূর্ব উত্তরপ্রদেশের গাজিপুর লোকসভা কেন্দ্রের তিন বারের বিজেপি সাংসদ ছিলেন। প্রথম নরেন্দ্র মোদি সরকারে রেলপ্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বেও ছিলেন তিনি। কিন্তু উনিশের ভোটে গাজিপুরে বহুজন সমাজ পার্টির প্রার্থী আফজল আনসারির কাছে হেরে যান ৬১ বছর বয়সী মনোজ। এবার তাঁকে জম্মু ও কাশ্মীরের সাংবিধানিক প্রধান করল কেন্দ্র। আগামী কাল, ৭ অগস্ট শপথ নিতে পারেন মনোজ সিনহা। মনোজ সিনহা জানান, খুবই বড় দায়িত্ব। আজই তিনি কাশ্মীর যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন: একদিনে নতুন আক্রান্ত প্রায় ৫৬ হাজার, দেশে করোনায় মৃত্যু পার হল ৪০ হাজারের গণ্ডি

যাইহোক, ১৯৮৫ সালের ব্যাচের গুজরাত ক্যাডারের অফিসার ছিলেন মুর্মু। নরেন্দ্র মোদি যখন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী তখন সেই রাজ্য প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন এই আমলা। মোদি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নিয়ে আসা হয় মুর্মুকে। তারপর জম্মু ও কাশ্মীর গত বছর ৪ আগস্ট রাজ্যের তকমা হারায়। ৫ আগস্ট ২০১৯, উপত্যকার বিশেষ অধিকার খর্ব করার পাশাপাশি সংবিধানের ৩৭০ ধারা ও ৩৫-এর ক ধারা বিলোপ করা হয়। এরপর কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মীরের নতুন লেপটেন্যান্ট গভর্নর হয়ে আসেন জিসি মুর্মু। কিন্তু বছর ঘুরতে না ঘুরতেই উপত্যকার নির্বাচনী কর্মকাণ্ড নিয়ে তিনি প্রশ্ন তুলতে শুরু করেন। সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর পদের বদল হল।

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close