fbpx
কলকাতাশিক্ষা-কর্মজীবনহেডলাইন

ইয়ং রিসার্চারস সামিট  ২০২০…

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: গত ২৮, ২৯, ৩০ শে জুলাই , এমিনেন্ট কলেজ অফ ফার্মাসিউটিকাল টেকনোলজি আয়োজন করেছিল ইয়ং রিসার্চারস সামিট ,২০২০। বলা যায়, পশ্চিমবঙ্গের কোনো ফার্মেসী কলেজের এটাই প্রথম উদ্যোগ। ডিজিটাল মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে যুবসমাজকে  গবেষণার কাজে অনুপ্রাণিত করাই এই অনুষ্ঠানের প্রধান উদ্দেশ্য। মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর সৈকত মৈত্র, স্কুল অফ ফুড, ফার্মাসিউটিকাল এন্ড মেডিকেল সাইন্স এন্ড টেকনোলজির ডিরেক্টর প্রফেসর প্রনবেশ চক্রবর্তী, এমিনেন্ট কলেজের প্রিন্সিপাল ডঃ অমিতশঙ্কর  দত্ত,  মৌলানা আবুল কালাম আজাদ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাসিউটিকাল টেকনোলজি বিভাগের প্রধান ডঃ সি এম হোসেন এবং এমিনেন্ট কলেজের অধ্যাপক ডঃ কৌশিক বিশ্বাস ভার্চুয়ালি এই অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন।

 

এই সুবাদে বিভিন্ন তরুণ গবেষকদের চলমান গবেষণার কথা জানতে পারা যায় যেমন ইনস্টিটিউট অফ ন্যানো সাইন্স এন্ড টেকনোলজির গবেষক ডঃ দীপিকা শর্মা  ক্যান্সার রোগ নির্ণয় -এর এক অভিনব উপায় ম্যাগনেটিক হাইপারথার্মিয়া নিয়ে কাজ করছেন, ইনস্টিটিউট অফ ন্যানো সাইন্স এন্ড টেকনোলজির আর এক  গবেষক ডঃ মনিকা সিংহ  সিগারেটের ধোঁয়া থেকে নিকোটিনের পরিমান নির্ধারণ করেছেন ইতিমধ্যেই। আইআইটি  গুয়াহাটির পোস্ট ডক্টোরাল ফেলো  ডঃ ঋদ্ধি মহানসারিয়া ব্যাকটেরিয়া থেকে জৈবপ্লাস্টিক তৈরির কথা, আইআইটি বিএইচইউ -এর অধ্যাপক ডঃ শ্রেয়ান্স জৈন জানান বিভিন্ন ক্যান্সার প্রতিরোধী ঔষধ সামগ্ৰী প্রস্তুতির ব্যাপারে। আইআইটি বিএইচইউ -এরই আর এক অধ্যাপক ডঃ রাজনীশ কুমার আলজেইমার্স  রোগ সংক্রান্ত বিবিধ আলোচনা করেন। ইনস্টিটিউট অফ বায়ো ওয়েস্ট এন্ড সাস্টেইনেবল ডেভেলপমেন্ট -এর গবেষক ডঃ লোকেশ দেব উত্তর-পূর্ব ভারতের আয়ুর্বেদিক দ্রব্যাদির ওপর কাজ করছেন যা হয়তো আগামী দিনে করোনা মোকাবিলায় সাহায্য করবে।

 

এমিনেন্ট কলেজ ও পিছিয়ে নেই, এই দৌড়ে তালে তাল মিলিয়ে চলছে। এই কলেজ এর অধ্যাপক ডঃ কৌশিক বিশ্বাস এন্টিবায়োটিক রেসিস্টেন্ট জিন নিয়ে যে গবেষণা করছেন তাও তিনি  এই সামিট-এ উপস্থাপনা করেন।প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফ মৈত্র এই অনুষ্ঠান-এর সমূহ প্রশংসা করে কলেজ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং গবেষণা যাতে দেশ ও দশের কাজে লাগে সেদিকে নজর দিয়ে সকলে মিলে একজোট হয়ে গবেষণা চালিয়ে যেতে বলেছেন।

Related Articles

Back to top button
Close