fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

যুব তৃণমূল ও এসইউসিআই সংঘর্ষে উত্তপ্ত মৈপিঠ, নিহত ২

হরিপদ মণ্ডল, মৈপিঠ: যুব তৃণমূল ও এসইউসিআই এর সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল দক্ষিণ ২৪ পরগনার মৈপিঠ কোস্টাল থানার অন্তর্গত বিনোদপুর গ্রাম। ঘটনায় এক যুব তৃণমূল কর্মী ও এক এস ইউ সি আই কর্মী নিহত হয়েছেন। নিহতদের নাম যথাক্রমে অশ্বিনী মান্না(৫০) ও সুধাংশু জানা(৫৬)। এই ঘটনায় শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত উভয় পক্ষের ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে খবর, শুক্রবার রাত দশটা নাগাদ দক্ষিণ ২৪ পরগনার মৈপিঠ কোস্টাল থানা এলাকার বিনোদপুর গ্রামের যুব তৃণমূলের নেতা অশ্বিনী মান্নার নেতৃত্বে একদল যুব তৃণমূল কর্মী স্থানীয় এস ইউ সি আই নেতা সুধাংশু জানার বাড়ির কাছে কয়েকটা দোকানে হামলা চালায়। এই ঘটনায় স্থানীয় লোকজন ও এসইউসিআই কর্মীরা ক্ষেপে গিয়ে তাঁদের বাধা দেয় এবং প্রতিরোধ গড়ে তোলে। পাল্টা মারধর ও করে তাদের। ঘটনায় অশ্বিনী মান্না সহ কয়েকজন গুরুতর জখম হন। ঘটনার খবর পেয়ে মৈপিঠ কোস্টাল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে গুরুতর জখম অবস্থায় যুব তৃণমূল কর্মীদের উদ্ধার করে। গুরুতর জখম অবস্থায় অশ্বিনী মান্না সহ অন্যান্যের হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে রাস্তায় মৃত্যু হয় অশ্বিনী মান্নার। যুব তৃণমূল নেতা অশ্বিনীর মৃত্যুর খবরে স্থানীয় যুব তৃণমূল কর্মীরা শনিবার সকল থেকে জায়গায় জায়গায় অবরোধ এবং এস ইউ সি আই এর বাড়ি ও দোকানে ব্যাপক ভাঙচুর করে অগ্নি সংযোগ করতে থাকে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। খবর পেয়ে বারুইপুর পুলিশ জেলার বিশাল পুলিশ বাহিনী এলাকায় গিয়ে অবস্থাকে আয়ত্তে আনার জন্য চেষ্টা করে।

ইতিমধ্যে স্থানীয় এস ইউ সি আই নেতা সুধাংশু জানার এর বাড়িতে ওনাকে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। তার বাড়ি ও ভাঙচুর করে সেখানে আগুন লাগিয়ে দেয় উত্তেজিত যুব তৃণমূল কর্মীরা। পুলিশ গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায় মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয় করতে। এস ইউ সি আইয়ের দাবি সুধাংশু কে খুন করে ঘরে ঝুলিয়ে দিয়েছে যুব তৃণমূল নেতৃত্ব।

আরও পড়ুন: করোনা : জিরিবামের জের জিরিঘাটে, লকডাউনের সিদ্ধান্ত নাগরিক সভায়

এ বিষয়ে দক্ষিণ ২৪ পরগনা তৃণমূল সভাপতি শুভাশিস চক্রবর্তী বলেন, ” বেশ কিছুদিন ধরে এস ইউ সি আই কর্মীরা বিভিন্ন অছিলায় এলাকায় অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছিল। আমাদের এক কর্মীকে শুক্রবার রাতে পিটিয়ে খুন করে ওরা। তাতেই অন্যান্য কর্মীরা উত্তেজিত হলেই এই ঘটনা ঘটেছে”।

অন্যদিকে এলাকার এস ইউ সি আই নেতা তথা কুলতলির প্রাক্তন বিধায়ক জয়কৃষ্ণ হালদার বলেন, ” আমফানের ক্ষতিপূরণের টাকা নিয়ে ব্যাপক দুর্নীতি করেছে তৃণমূল। স্থানীয় মৈপিঠ পঞ্চায়েতের এই দুর্নীতির প্রতিবাদে সরব হয়েছেন দলের কর্মীরা। থানা সহ বিভিন্ন প্রশাসনিক স্তরে এ বিষয়ে ডেপুটেশন ও দেওয়া হয়েছে। এতেই ওরা ক্ষেপে গিয়ে শুক্রবার রাতে পরিকল্পিত ভাবে লাঠি, বোমা, বন্দুক নিয়ে হামলা চালায় আমাদের কর্মীদের বাড়ি ও দোকানে। কর্মীরা প্রতিরোধ গড়ে তুললে স্থানীয় মানুষজন এগিয়ে এসে ওদেরকে গনধোলাই দেয়। কিন্তু এদিন সকালে আবার পরিকল্পিত ভাবে আমাদের কর্মীদের বাড়িতে হামলা চালায়, আগুন লাগিয়ে দেয়। আমাদের এক প্রবীণ নেতাকে ও খুন করেছে”। এই ঘটনায় এলাকায় এখনো যথেষ্ট উত্তেজনা রয়েছে। এলাকায় নতুন করে যাতে উত্তেজনা না ছড়ায় সে কারণে পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে। এই ঘটনায় বাকি জড়িতদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close