fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

পঞ্চায়েতে বিরোধী শূন্য! দিদিমনির জন্য বাংলায় বিজেপি এসেছে, অভিযোগ পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকীর

মোকতার হোসেন মন্ডল: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য বাংলায় বিজেপি এসেছে বলে অভিযোগ করলেন ফুরফুরা আহলে সুন্নাতুল জামাতের সম্পাদক পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকী। ভক্তদের উদ্দেশ্যে দেওয়া এক ভাষণে পীরজাদা বলেন, পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিরোধী শূন্য করার চেষ্টা হয়েছিল। ফলে সিপিএম,কংগ্রেসের লোকেরা অনেক জায়গায় নমিনেশন করতে পারেনি। ফলে রাগে বাধ্য হয়ে বিজেপি করেছে।

আব্বাস সিদ্দিকী বলছেন, ২০১১ সালে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর বিজেপির উত্থান হয়েছে।তাঁর প্রশ্ন, লোকসভায় বিজেপি কিভাবে ১৮টি আসন পেল? নিশ্চয় দিদিমনি তাহলে বিজেপিকে ঠেকাতে পারছেন না? নাকি ভিতরে ভিতরে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে যোগাযোগ আছে? আব্বাস সিদ্দিকী এদিন স্পষ্ট জানিয়ে দেন, দলিত,আদিবাসী ও মুসলিম সম্প্রদায়ের পাশে তিনি থাকবেন। হিন্দু, মুসলিম সবার জন্য রাজনীতি করবেন। পীরজাদা বলছেন, আমি নাকি ভোট কেটে বিজেপিকে সুবিধা করে দিচ্ছি। তাহলে নিশ্চয় আমার ভোট আছে? যদি ভোট থাকে সেটা কেন তোমাকে দেব? তাছাড়া বিজেপি কি শুধু মুসলিমদের শত্রু? যদি শুধু মুসলিমদের শত্রু হয় তাহলে তাকে রোখার দায়িত্ব দিদিমনিকে দেবো কেন? আমি মনে করে বিজেপি দেশের শত্রু,তাহলে সবাই মিলে বিজেপির বিরুদ্ধে লড়তে হবে। কেন শুধু মুসলিম লড়বে?

পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকীর অভিযোগ, স্বাধীনতার পর থেকে বিজেপির ভয় দেখিয়ে মুসলিমদের মূল স্রোতের রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখা হয়েছে। যখনই মুসলিমরা নেতা তৈরি করে রাজনীতি করতে গেছে তখনই তাকে বিজেপির ভয় দেখিয়ে বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমাদের দাবি দাওয়া নিয়ে আইনসভায় কথা বলার মতো কে আছে? সব তো বিক্রি হয়ে গেছে। তাই নিজেদের অধিকার নিয়ে সরব হতে হবে। দেশকে ভালোবাসা মুসলিমদের দায়িত্ব। দেশে অন্যায় হলে প্রতিবাদ করতে হবে।
কিন্তু মুসলিম ধর্মগুরু রাজনীতি করবেন কেন? আব্বাস সিদ্দিকীর জবাব, রাজনীতি কি ইসলামে নিষিদ্ধ? ইসলাম পূর্নাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা। অন্যধর্মের ধর্মগুরুরা মুখ্যমন্ত্রী হয়ে যাচ্ছেন সমস্যা নেই, কিন্তু মুসলিম আলেম উলামারা রাজনীতি করলেই তাকে বসিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়।

Related Articles

Back to top button
Close